মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই, ২০১৯ ইং ১ শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ,১২ জিলক্বদ, ১৪৪০ হিজরী

জিলহজের প্রথম ১০ দিন যে কাজগুলো এড়িয়ে চলবেন

AmaderIslam.COM
আগস্ট ১৭, ২০১৮
news-image

আমিন মুনশি: পবিত্র ঈদুল আজহায় কুরবানি করার সামর্থ যারা রাখেন অথবা রাখেন না; তাদের সবার জন্য জিলহজ মাসের প্রথম ১০ দিন অর্থাৎ কুরবানি করার আগ পর্যন্ত কিছু বিধিনিষেধ রয়েছে। যা পালন করে লাভ করতে পারেন অনেক সওয়াব।

জিলহজ মাস আসার আগেই যে বিষয়গুলো মেনে চলা জরুরি তা হলো:

১. মাথার চুল কাটা কিংবা মাথা ন্যাড়া করা।
২. হাত ও পায়ের নখ কাটা।
৩. মোচ ছেঁটে ছোট করা।
৪. শরীরের অযাচিত পশম কাটা কিংবা পশম বিলুপ্তকারী ওষুধ ব্যবহার করা।

যদি কেউ কুরবানির আগে এ কাজগুলো করে অর্থাৎ চুল, চামড়া বা নখ কাটে তার জন্য কোনো জরিমানা নেই। তবে আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাইতে হবে। তাই যে ব্যক্তি কুরবানি করবে সে ব্যক্তি জিলহজ মাসের প্রথম ১০দিন চুল, চামড়া বা নখ কাটা থেকে বিরত থাকবে। তবে ফিকাহবিদদের কেউ কেউ এ কাজগুলোকে হারাম বলেছেন।

জিলহজ মাসের প্রথম ১০ দিন উল্লেখিত কাজগুলো থেকে বিরত থাকা প্রসঙ্গে প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সুস্পষ্ট নির্দেশনা দিয়েছেন। হাদিসে এসেছে- হজরত উম্মে সালমা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘যখন জিলহজ-এর ১০ দিন আসে এবং তোমাদের কেউ কুরবানি করার নিয়ত করে; তখন সে যেন নিজের চুল ও চামড়ার কোনো অংশ না কাটে।’ (মুসলিম শরিফ)

হাদিসের নির্দেশনা অনুযায়ী জিলকদ মাসের শেষ দিকে উল্লেখিত কাজগুলো সেরে ফেলা উচিত। যাতে জিলহজ মাসের শুরু থেকে কুরবানির দিন পর্যন্ত এ কাজগুলো করা না লাগে।

সুতরাং মুসলিম উম্মাহর উচিত, যারা কুরবানি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তাদের চুল, নখ বা অযাচিত পশম থেকে নিজেদেরকে পরিচ্ছন্ন রাখতে জিলহজ মাস আসার আগেই পরিচ্ছন্ন করে নেয়া।

আল্লাহ তায়ালা আমাদের সবাইকে জিলহজ মাসের সম্মানের প্রতি খেয়াল রেখে উক্ত হাদিসের ওপর আমল করার তাওফিক দান করুন। আমিন।