শনিবার, ১৯ অক্টোবর, ২০১৯ ইং ৪ কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ,১৯ সফর, ১৪৪১ হিজরী

মাহরামের সাথে বিয়ে বৈধ নয় কেন?

AmaderIslam.COM
জানুয়ারি ২০, ২০১৯
news-image

সাইদুর রহমান : মাহরাম বা আত্মীয়দের সাথে বিয়ে কেন অবৈধ তার নিগুঢ় রহস্য একমাত্র আল্লাহ তাআলাই ভালো জানেন। তবে এখানে কিছু বিষয়ও এমন রয়েছে যা যুক্তির বিচারে উত্তীর্ণ ও বিবেক সমর্থিত। মূলত মানুষ মাত্রই এমন কিছু আত্মীয় থাকে যাদের সাথে মানুষের সুস্থ স্বভাব দাম্পত্য সম্পর্ক স্থাপন করতে এক রকমের অস্বসস্তি ও ঘৃণাবোধ করে। তাদের সাথে যৌন সম্পর্ক গড়ে তুলতে সে স্বাচ্ছন্দবোধ করে না। এ কারণেই আল্লাহর দুশমন ধর্মহীন নাস্তিক শ্রেণীর লোকেরাও শুধুমাত্র বিবেকের তাড়নায় মা-বোন, কন্যা, পুত্রবধূ, শাশুড়ি, খালা-ফুফু, দাদী-নানী প্রমুখ আত্মীয়-স্বজনের সাথে বৈবাহিক সম্পর্ক গড়তে লজ্জাবোধ করে।

মানব ইতিহাসে স্বভাব বিরোধী ও চূড়ান্ত লজ্জাকর অল্প কিছু উপমাই পাওয়া যায় যারা সুস্থ-স্বাভাবিক এই বোধ-বিশ্বাসের দেয়ালটুকুও ভেঙ্গে ফেলতে চেষ্টা করেছে। এ ক্ষেত্রে তারা কোন লজ্জাবোধই করেনি। কিন্তু সমাজ-সভ্যতা এদেরকে সর্বদা ঘৃণা ও হেয় দৃষ্টিতেই দেখেছে।

দ্বিতীয়ত এ জাতীয় নিকটত্মীয়ের সাথেও যদি বিবাহে আবদ্ধ হওয়ার নিষিদ্ধতার দেয়াল না থাকে, তা হলে কোন স্বামীই নিজের স্ত্রীর সতীত্ব ও পবিত্রতার ক্ষেত্রে কারও উপর ভরসা করতে পারবে না। নিষিদ্ধতার এই দেয়ালটুকু আছে বলেই মানুষ স্বভাবগত ভা্বইে স্ত্রীদের সতীত্বের ক্ষেত্রে মাহরাম আত্মীয়ের প্রতি বিশ্বাস রাখতে পারে। যদি এই দেয়ালটুকুও ভেঙ্গে ফেলা হয়, তা হলে সর্বক্ষণ পাশাপাশি অবস্থানরত বাবা-মেয়ে, পত্রবধূ-শশুড়, ভাই-বোন প্রমুখ নিকট আত্মীয়দের মাঝে পরিণত হবে পশুর সমাজ-স্বভাবে।

তৃতীয়ত আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞানীরাও একথা স্বীকার করেছেন, একান্ত কাছের বংশীয় আত্মীয়ের সাথে যদি দাম্পত্য জীবন গড়ে উঠে, তা হলে এই দাম্পতি থেকে যেসব সন্তান-সন্ততি জন্ম নেয় তারা অস্বাভাবিকতা ও মানসিক ভারসাম্যহীনতা সহ নানা রকমের জটিল ও কঠিন রোগের শিকার হয়।